Tuesday, 26 February 2013

পুলিশের নির্বিচারে আলেম হত্যা : স্বতঃস্ফূর্ত হরতাল, সিংগাইরে গুলিতে মহিলাসহ নিহত ৫ আজ মানিকগঞ্জে হরতাল, সারাদেশে বিক্ষোভ ও নফল রোজা ইসলামীদলগুলোর ডাকা হরতালে মানিকগঞ্জে পুলিশের গুলিতে আলেম ও মহিলাসহ ৫ জন নিহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী। নিহতরা খেলাফত মজলিস, ছাত্রমজলিস ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মী। এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আজ মানিকগঞ্জ জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল এবং সারাদেশে বিক্ষোভ ও নফল রোজা রাখা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ইসলামী দলগুলো। বিএনপি এ হরতালে সমর্থন জানিয়েছে। হরতাল চলাকালে বগুড়ায় পিকেটার দেখামাত্রই গুলি চালায় পুলিশ। সেখানে ২০ জন আহত হয়। এছাড়া রাজধানীসহ সারাদেশে সাঁজোয়া যান নিয়ে মারমুখী অবস্থানে ছিল সশস্ত্র র্যাব ও পুলিশ। ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় টহল দেয় বিজিবি। ইসলামী দলগুলোর অফিস, বিভিন্ন মাদরাসা ও মসজিদ সকাল থেকেই ঘেরাও করে রাখে পুলিশ। গুরুত্বপূর্ণ সব জায়গায় মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক র্যাব ও পুলিশ। ফুটপাতের দোকান খুলতে দেয়নি তারা। পাঞ্জাবি-টুপি পরা লোক দেখলেই ধাওয়া করা হয়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এ কড়া অবস্থানের কারণে সারাদেশে তেমন কোনো পিকেটিং ও মিছিল করতে পারেনি হরতাল সমর্থকরা। তবে কিছু জায়গায় ঝটিকা মিছিল করে তারা। এ সময় বিক্ষিপ্তভাবে কিছু জায়গায় পুলিশের সঙ্গে পিকেটারদের সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণ, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। হরতালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় সকালে একটি লেগুনায় আগুন ও ধানমন্ডিতে গাড়ি ভাংচুর করে পিকেটাররা। হরতালের সমর্থনে কামরাঙ্গীরচর মাদরাসায় ইসলামী দলগুলোর মিছিলে বাধা দেয় পুলিশ। সেখানে নাস্তিক ব্লগারদের কুশপুত্তলিকা পোড়ায় বিক্ষুব্ধরা কর্মীরা। এছাড়া রাজধানীর পল্টন, ফকিরাপুল ও মহাখালী এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণ হয়। মতিঝিল ও বিজয়নগরসহ বিভিন্ন জায়গায় ফাঁকা গুলি চালায় পুলিশ। অপরদিকে হরতাল প্রতিরোধে লাঠি হাতে মিছিল-স্লোগানে সরব ছিল সরকারদলীয় ও শাহবাগের আন্দোলনকারীরা। এ সময় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামে ট্রেন অবরোধ করে রাখে মুসল্লিরা। এ সময় পিকেটারদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। চাঁদপুরেও দু’পক্ষে সংঘর্ষ হয়। এদিকে হরতালবিরোধী মিছিল থেকে হরিণাকুণ্ড, ঈশ্বরদীসহ বিভিন্ন স্থানে জামায়াত-শিবিরের অফিসে হামলা ও ভাংচুর করা হয়। ইসলামী ব্যাংকের পল্টন, কেরানীগঞ্জ, ভুলতা, রূপগঞ্জ, নওয়াপাড়াসহ বিভিন্ন শাখায়ও হামলা ও ভাংচুর চালানো হয়। এদিকে পিকেটিং ছাড়াই স্বতঃস্ফূর্ত হরতালে কার্যত অচল হয়ে পড়ে রাজধানীসহ সারাদেশ। রাজধানীতে সকাল থেকে কিছু লোকাল বাস, সিএনজি ও রিকশা ছাড়া যান চলাচল ছিল খুবই কম। কোনো প্রাইভেট গাড়ি চলেনি। ছেড়ে যায়নি দূরপাল্লার কোনো বাস। এমনকি বাসের কাউন্টারও খোলেনি। বড় বড় মার্কেট, বেসরকারি অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং দোকানপাট ছিল বন্ধ। ব্যাংক বীমা খোলা থাকলেও প্রধান গেট ছিল বন্ধ। অজানা আতঙ্কে অফিস ও জরুরি কাজ ছাড়ায় রাস্তায় বের হয়নি সাধারণ মানুষ। হরতাল সমর্থকদের পক্ষ থেকে কোনো ভাংচুর বা বাধা না থাকায় বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নগরীতে যানবাহন চলাচলের সংখ্যা কিছুটা বেড়ে যায়। হরতালের কারণে এসএসসি, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও ইবির ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ। আল্লাহ ও রাসুল (সা.)-এর অবমাননাকারী নাস্তিক ব্লগারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ইসলমী রাজনীতি নিষিদ্ধের ষড়যন্ত্র বন্ধ এবং গত শুক্রবার রাজধানীসহ সারাদেশে মুসল্লিদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশের বেপরোয়া হামলা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে এই হরতালের ঘোষণা দেয় বেশ কয়েকটি ইসলামী দল। গত শনিবার খেলাফত আন্দোলনের আমির মাওলানা শাহ আহমদুল্লাহ আশরাফ এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন। একই দাবিতে কাল সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচিরও ঘোষণা দেন তিনি। দেশের সর্বজনশ্রদ্ধেয় আলেম ও চট্টগ্রাম হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা আহমদ শফির নেতৃত্বাধীন হেফাজতে ইসলাম এবং খেলাফত মজলিসের পক্ষ থেকেও পৃথকভাবে রোববার হরতাল কর্মসূচি দেয়া হয়। হরতাল আহ্বানকারী দলগুলো হচ্ছে—খেলাফত আন্দোলন, খেলাফত মজলিস, ইসলামী ঐক্যজোট, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, নেজামে ইসলাম পার্টি, খেলাফতে ইসলামী, ওলামা কমিটি প্রভৃতি। এদিকে আলেমদের ডাকা হরতালে সমর্থন দেয় প্রধান বিরোধী দল বিএনপি, জামায়াতে ইসলামী ও ১৮ দলীয় জোটের অন্য শরিকসহ বিভিন্ন ইসলামী দল ও সংগঠন। তবে এসব দল হরতালের সমর্থনে কোনো মিছিল বা পিকেটিং করেনি। হরতালে নৈতিক সমর্থন দিলেও মাঠে ছিল না বিএনপি। দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় পুলিশ অবরুদ্ধ করে রাখে। নেতাকর্মীরা কেউ কেউ কার্যালয়ে এলেও হরতালের পক্ষে কোনো তত্পরতা ছিল না। মানিকগঞ্জে হরতাল সমর্থক-পুলিশ ব্যাপক সংঘর্ষ : পুলিশের গুলিতে নিহত ৫, শিশুসহ গুলিবিদ্ধ ২০, আজ জেলাব্যাপী হরতাল : মানিকগঞ্জ ও সিংগাইর প্রতিনিধি জানান, সিংগাইরে গতকাল ইসলামী সমমনা দলগুলোর হরতাল চলাকালে হরতাল সমর্থনকারী, গ্রামবাসী ও পুলিশের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এতে গুলিবর্ষণ টিয়ারশেল নিক্ষেপ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পুলিশের গুলিতে মাদরাসা শিক্ষকসহ ৫ জন নিহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধ হয়েছে শিশুসহ ২০ জন। দু’পুলিশ কর্মকর্তার মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ও থানার ওসিসহ ৩ পুলিশ আহত হয়েছে । প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসীরা জানায়, গতকাল সকাল ৯টার দিকে রাস্তা অবরোধ করা নিয়ে কাশিমনগর বাসস্ট্যান্ডে হরতাল সমর্থনকারীদের সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদ খানের তর্কবিতর্ক হয়। একপর্যায়ে তাকে মারধর করে তারা। এ খবর আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে জড়ো হয়ে তারা সদর বিএনপির কার্যালয়সহ ইসলামী সমমনা দলের সমর্থনকারীদের মারধরসহ দুটি দোকান ভাংচুর করে। এ খবরে সকাল এগারোটার দিকে হরতাল সমর্থনকারীরা গোবিন্দল বাসস্ট্যান্ড নতুন বাজারে সিংগাইর-মানিকগঞ্জ সড়কে যানচলাচল বন্ধ করে দেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশের সঙ্গে এএসপি সদর সার্কেল মো. কামরুল ইসলামের নেতৃত্বে যোগ দেয় অতিরিক্ত পুলিশ। সংঘর্ষ বাধে পুলিশ ও হরতাল সমর্থনকারীদের মধ্যে। এক পর্যায়ে পুলিশ গুলিবর্ষণ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। পুলিশের ছোড়া গুলিতে বসতবাড়ির টিনের বেড়া ভেদ করে প্রবাসীর স্ত্রী হেলেনা আহত হন। এতে হরতাল সমর্থনকারী ও গ্রামবাসী চারদিক থেকে পুলিশকে ঘেরাও করে। এতে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় ডিবি সদস্য মুজিবর ও পুলিশ কনস্টেবল শাহিন আহত হন। এ সময় পুলিশ ব্যাপক গুলিবর্ষণ করলে গোবিন্দল মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ শাহ আলম (২৫), নাজিম উদ্দিন (২৬), আলমগীর (২৫), হেলেনা (২২) ও মাওলানা নাসির উদ্দিন (৩০) নিহত হন। গুলিবিদ্ধ হয় আলী আকবর, লিংকন, নোয়াব আলী, সিদ্দিক, নাজিম উদ্দিন, কালু, দুলাল মিয়া, আলমাস, মানিক, মামুন, আনোয়ার, ওয়াজেদ, শাহিন, রুবেল, রউফ ও শিশু লিটন। নিহত-আহতরা সবাই গোবিন্দল গ্রামের বাসিন্দা। এর মধ্যে নাজিমউদ্দিন স্বেচ্ছাসেবক দল এবং বাকিরা খেলাফত মজলিসের নেতাকর্মী বলে সংশ্লিষ্টরা দাবি করেছেন। সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. খলিলুর রহমান জানান, গুলিবিদ্ধ আহতদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদিকে হরতাল সমর্থনকারীদের ইট-পাটকেলের আঘাতে আহত হয়েছেন সিংগাইর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. লিয়াকত আলী। সে সঙ্গে অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে দিয়েছে এসআই আদিল মাহমুদ ও এসআই এমদাদুল হকের ব্যবহৃত দুটি মোটরসাইকেল। পুলিশ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। খেলাফত মজলিসসহ ইসলামি দলগুলোর পক্ষ থেকে আজ মানিকগঞ্জ জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ ও র্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি নুরুজ্জামান ও র্যাব ৪-এর কমান্ডিং অফিসার কিসমত হায়াত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এদিকে সিংগাইরে পুলিশের গুলিতে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা নাজিমুদ্দিনসহ চারজন নিহত হওয়ার ঘটনায় সোমবার সকাল-সন্ধ্যা হরতালের সমর্থনে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করেছে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা। গতকাল বিকাল ৫টায় বিএনপি কার্যালয় থেকে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি শহর প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে। এতে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক শরিফ ফেরদৌসের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন অ্যাডভোকেট জামিলুর রশিদ খান, আতাউর রহমান আতা, মোতালেব হোসেন প্রমুখ । মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আলী মিয়া দাবি করেন, জামায়াত-বিএনপির কর্মীরা হরতালের নামে দোকানপাট ভাংচুর ও রাস্তায় গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ করে। এ সময় পুলিশ বাধা দিতে গেলে হরতালকারীরা পুলিশের ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এতে সিংগাইর থানার অফিসার ইনচার্জ লিয়াকত আলীসহ ১৫ জন পুলিশ সদস্য আহত হন। জীবন রক্ষার্থে পুলিশ গুলি চালাতে বাধ্য হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য ৫০ রাউন্ড টিয়ারশেল এবং ৩০০ রাউন্ড গুলিবর্ষণ করা হয়। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ ও র্যাব মোতায়ন করা হয়েছে। এ ঘটনায় ৭ জন হরতাল সমর্থনকারীকে আটক করা হয়েছে। রাজধানীর কামরাঙ্গীর চর-পুরান ঢাকা : গতকাল কামরাঙ্গীর চর এলাকায় শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল পালিত হয়েছে। প্রতিদিনের তুলনায় গতকাল ওই এলাকায় গাড়ি চলাচল অনেক কম ছিল। তবে পুলিশ ও র্যাব ফজরের নামাজের পর থেকেই জামিয়া নূরিয়া ইসলামিয়া হাফেজ্জী হুজুরের মাদরাসার সামনে অবস্থান নেয়। মাদরাসার আশপাশ এলাকায় ২-৩ জনের বেশি একত্রিত হতে দেয়নি। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মাদরাসা থেকে একটি মিছিল বের হওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশের বাধার সম্মুখীন হয়। পুলিশ আগেই মিছিল বের না করার কড়া নির্দেশ দিয়ে যায়। পরে মিছিলটি মাদরাসার ভিতরে প্রদক্ষিণ করে। মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তারা বলেন, আজকের (রোববার) হরতাল বেঈমানদের বিরুদ্ধে ঈমানদারদের হরতাল। যারা এই হরতালের বিরোধিতা করেছে তারা সবাই নাস্তিক। আল্লাহ এবং রাসুলুল্লাহ (সা.) বিরুদ্ধে যারা কটূক্তি করেছে তারা মানুষ নয়, তারা বেঈমান পশু। আর যারা তাদের সমর্থন করে তাদের রাজনীতি করার অধিকার নেই। দৈনিক আমার দেশ-এর সম্পাদক মাহমুদুর রহমান একজন সত্যের সৈনিক। কোনো নাস্তিক-মুরতাদ আমার দেশ বন্ধ করতে পারবে না। আমরা জনগণ আমার দেশ-এর পাশে আছি, থাকব। খেলাফত আন্দোলনের আমির হজরত মাওলানা শাহ আহম্মদুল্লাহ আশরাফ বলেন, এই হরতাল ডাকা হয়েছে নাস্তিক-মুরতাদদের বিরুদ্ধে। এই হরতাল মারামারি-কাটাকাটি করার জন্য নয়। আমরা কোনো সংঘাতে যাব না। শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল করবো। দলের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, এই হরতালে সারা দেশবাসী সমর্থন দিয়েছে। এই হরতাল কোনো সরকারের বিরুদ্ধে নয়। ব্লগারদের পক্ষ নেয়ার কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তাওবা করতে হবে। এই আন্দোলনকে জামায়াতে ইসলামীর আন্দোলন বলে কিছু মিডিয়ার প্রচারণার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, এই হরতাল হচ্ছে ইসলামি সমমনা ৮ দলের হরতাল। কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আবু জাফর কাশেমী গ্রেফতার করা তাঁতীবাজার মাদরাসার ছাত্রদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মুক্তি দেয়ার দাবি জানান। সমাবেশ শেষে মাদরাসার মাঠে ব্লগার নাস্তিক ও মুরতাদদের কুশপুত্তলিকা দাহ করে। এদিকে সকাল থেকে পুরান ঢাকায় শান্তিপূর্ণ হরতাল পালন হয়েছে। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। গুলিস্তান, কাপ্তান বাজার, নবাবপুর, সূত্রাপুর, বাংলাবাজার, বংশাল, সদরঘাট, নয়াবাজার, বাবুবাজার, মিটফোর্ড রোড, চকবাজার, পোস্তা, লালবাগ, আজিমপুর, হাজারীবাগ এলাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দোকানপাটগুলো বন্ধ ছিল। রাস্তায় সিএনজি, টেম্পো চলাচল ছিল। কিন্তু প্রাইভেট কার দেখা যায়নি। রিকশা চলাচলও ছিল স্বাভাবিক। সায়েদাবাদ-যাত্রাবাড়ী : গতকালের হরতাল স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালিত হয়েছে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, মানিকনগর, ডেমরা, ধোলাইরপাড়, ধলপুর, কাজলাসহ আশপাশের এলাকায়। এসব এলাকার খাবার হোটেল ও ওষুধের দোকান ছাড়া অন্য কোনো দোকানপাট খোলেননি ব্যবসায়ীরা। সায়েদাবাদ আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল থেকে একটি বাসও ছেড়ে যায়নি। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঢাকার বাইরে থেকে একটি বাসও টার্মিনালে আসেনি। যাত্রবাড়ি থেকে মিরপুর ও গাবতলী রুটে কয়েকটি শিকড় ও ৮ নম্বর বাস আসা যাওয়া করেছে। তবে এগুলোর কোনো কোনোটিতে ৮/১০ জন যাত্রী ছিল। কোনটিতে আদৌ কোনো যাত্রী ছিল না। সকাল ১০টায় যাত্রবাড়ি চৌরাস্তায় টিভি ক্যামেরাম্যানদের অনুরোধে স্থানীয় যুবলীগের নেতাকর্মীরা কয়েকটি খালি বাস কয়েকবার যাত্রাবাড়ি ও সায়েদাবাদ এলাকা ঘোরাতে বাধ্য করে। প্রাইভেটকার, ট্রাকসহ অন্যান্য যানবাহন চোখে পড়েনি। সকালের দিকে বেশ কিছু রিকশা চলেছে। তবে দুপুরের দিকে যাত্রী না থাকায় রিকশা চলাচলও কমে আসে। সকালের দিকে ধোলাইরপাড়, কাজলা ও ধলপুরে হরতালের পক্ষে মিছিল হয়। ধলপুরে একটি টেম্পোতে আগুন দেয়া হয়। ধোলাইরপাড় থেকে হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল যাত্রাবাড়ির দিকে এগোনোর কিছুক্ষণের মধ্যে পুলিশ ও র্যাবের বাধায় তা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এ সময় পিকেটারা একটি বাস ও একটি টেম্পো ভাংচুর করে। যাত্রাবাড়িতে হরতাল প্রতিরোধে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের স্থানীয় ৩০-৪০ জন নেতাকর্মী পুলিশ, র্যাব ও বিজিবির উপস্থিতিতে হকিস্টিক নিয়ে মিছিল করে। দুপুর পর্যন্ত যাত্রাবাড়ি চৌরাস্তায় পুলিশ ও র্যাবের পাশাপাশি অবস্থান করে তারা। হরতালে মিরপুর, মোহাম্মদপুর, মহাখালী ও গুলশানের চিত্র : ইসলামি দলগুলোর হরতালে গতকাল মিরপুর, মোহাম্মদপুর, মহাখালী ও গুলশানে কোনো সহিংসতা হয়নি। মিরপুর ও মোহাম্মদপুরে দুটি ঝটিকা মিছিল বের করে হরতাল সমর্থকরা। ধানমন্ডিতে সকাল ৭টার দিকে মিছিল বের করে সমমনা ইসলামি দল। গাবতলী ও মহাখালী থেকে অতি ভোরে ৪/৫টি দূরপাল্লার গাড়ি ছেড়ে গেলেও তা ছিল যাত্রীশূন্য। তবে সাড়ে ৬টার পর দূরপাল্লার কোনো গাড়ি ছেড়ে যায়নি। মিরপুর এলাকায় কোনো সংঘর্ষ না হলেও মিরপুর এক নম্বরের দিকে ঝটিকা মিছিল করেছে। তবে পুরো ঢাকায় গতকাল পুলিশ ও র্যাব নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে বেশ সতর্ক অবস্থানে ছিল। সর্বদা বন্দুক তাক করে তারা টহল দিয়েছে। র্যাব-পুলিশের সংখ্যা ছিল অন্য হরতালের চেয়ে অনেক বেশি। এতে প্রতিটি এলাকায় অফিসগামী মানুষের মাঝে আতঙ্ক দেখা দেয়। বাড়তি আতঙ্ক ছড়ায় সরকারি দলের নেতাকর্মীদের লাঠি-রডের মহড়া ও হরতালবিরোধী মিছিল। থেমে থেমে রাজধানীর সব স্ট্যান্ডে তারা মিছিল করেছে। মিরপুর ১০ নম্বর গোলচত্বরে জমায়েত হয়ে ছাত্রলীগ-যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের কর্মীরা হরতালবিরোধী মিছিল করে। স্থানীয় এমপি কামাল মজুমদারের নেতৃত্বে লাঠি মিছিল করে তারা। মতিঝিল, পল্টন, খিলগাঁও ও মগবাজার : হরতাল প্রতিরোধে মতিঝিল, পল্টন, খিলগাঁও এবং মগবাজারসহ আশপাশের এলাকায় কঠোর অবস্থানে ছিল র্যাব ও পুলিশ। এসব এলাকায় তেমন কোনো পিকেটিং দেখা যায়নি। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে মতিঝিল কমলাপুর থেকে জসিমউদ্দিন সড়কে ঝটিকা মিছিল করে সমমনা ১২ দল। দুপুরের দিকে পল্টন তোপখানা রোডে একটি ককটেল বিস্ফোরণের খবরে ওই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তবে সেখানে কোনো পিকেটিং বা মিছিল হয়নি। ১০টার দিকে হরতালবিরোধী একটি মিছিল থেকে পল্টন মোড়ে ইসলামি ব্যাংকের সাইনবোর্ডে ঢিল ছোড়া হয়। সকাল ৮টার দিকে খিলগাঁও শাহজাহানপুরে পিকেটিং করে ইসলামি দলের কিছু কর্মী। এ সময় পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে সরিয়ে দেয়। একই সময়ে উত্তর শাহজাহানপুর মাদরাসার পাশে কিছু ছাত্র জড়ো হলে পুলিশ তাদেরও ধাওয়া দেয়। মগবাজার, পল্টনসহ বিভিন্ন এলাকায় লাঠিহাতে হরতালবিরোধী মিছিল বের হয়। হরতাল সফলে অভিনন্দন ও নতুন কর্মসূচি ঘোষণা : ইসলামি দলগুলোর ডাকা হরতাল স্বতঃস্ফর্ত ও শান্তিপূর্ণভাবে সফল করায় সবাইকে অভিনন্দন জানিয়েছেন খেলাফত আন্দোলনের আমির মাওলানা শাহ আহমদুল্লাহ আশরাফ। হরতাল শেষে বিকালে কামরঙ্গীরচর মাদরাসায় আয়োজিত এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি হরতাল চলাকালে পুলিশের বেপরোয়া গুলিতে মানিকগঞ্জে ৫ জন নিহত এবং সারাদেশে নেতাকর্মী ও ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ওপর হামলা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে আজ মানিকগঞ্জ জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল, সারাদেশে বিক্ষোভ পালন, সব শহীদ ও আহতদের জন্য দোয়া এবং রোজা রাখার আহ্বান জানান। একই সঙ্গে মসজিদে মসজিদে কুনুতে নাযেলা পড়ে দোয়া অব্যাহত রাখার জন্যও ইমামদের প্রতি আহ্বান এবং ২৬ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নাস্তিক-মুরতাদ ব্লগারদের ইসলামবিরোধী তত্পরতার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সারাদেশে গণসংযোগ করার জন্য আলেম-ওলামা, নেতাকর্মী ও নবীপ্রেমিকদের প্রতি আহ্বান জানান। ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নাস্তিক-মুরতাদ ব্লগারদের গ্রেফতার করে শাস্তি প্রদান এবং খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা জাফরুল্লাহ খানসহ এই আন্দোলনে গ্রেফতারকৃত সবার নিঃশর্ত মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার না করলে ১ মার্চ বাদজুমা দেশব্যাপী বিক্ষোভ ও দোয়া দিবস পালন করা হবে। নেতারা জানান, ওইদিনের বিক্ষোভ শুধু বাংলাদেশেই সীমাবদ্ধ থাকবে না, বিশ্বনবীর (সা.) প্রেমিকরা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেবে ইনশাআল্লাহ। প্রেস ব্রিফিংয়ে বলা হয়, কিছু পত্রিকা ও ইলেট্রনিক মিডিয়ায় নাস্তিকদের পক্ষ নিয়ে উস্কানি ও বিভ্রান্তিমূলক সংবাদ প্রচার বন্ধ না করলে ১ মার্চ থেকে তাদের এবং সংশ্লিষ্ট কোম্পানিগুলোর পণ্য বর্জন করার জন্য দেশবাসীকে আহ্বান জানানো হবে। এদিকে হরতাল সফল করায় বিভিন্ন দলের পক্ষ থেকে দেশবাসীকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে।

No comments:

Post a Comment